tanoreordinaryit.com https://www.tanoreordinaryit.com/2023/08/14-46.html

অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ

প্রতিটি মহিলার একটি ভিন্ন মাসিক চক্র আছে,অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ কারো কারো জন্য এটি প্রতিমাসের শুরুতে বা প্রতি মাসের শেষে ঘুরতে পারে, অনিয়মিত মাসিক তখন ঘটে যখন কারো মাসিক চক্র চব্বিশ দিনের কম বা ৩৮ দিনের বেশি হয় বা চক্রের সময়কাল ঘন ঘন পরিবর্তন হয় তখনই মাসিকের সমস্যা দেখা দেয়, অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ এটির কারনে মূলত ডিম্বাণ আসুক তৈরি হতে পারে না,
অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার অনেকগুলো কারণ রয়েছে তার মধ্যে মূল কারণ হচ্ছে ডিম্বা শয়ের ত্রুটি বা অপুষ্টি বা হরমন জড়িত সমস্যা অবুষ্টির মানে কেবল ভগ্ন স্বাস্থ্য নয় শারীরিক দুর্লতা বা অতিরিক্ত মিটিয়ে যাওয়ায় অবগোষ্ঠীর লক্ষণ তাই আজকে আমরা আলোচনা করব মহিলাদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণসমূহ,

পোস্ট সূচিপত্র: অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ

ভূমিকা:

অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ অনিয়মিত পিরিয়ড মেয়েদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় অনিয়মিত পিরিয়ড এর ফলে পড়তে হতে পারেন নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন মাতৃত্ব ধারণের জন্য পিরিয়ড সঠিক সময়ে হওয়া অনেক বেশি জরুরী মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার প্রায় সকলের অতিরিক্ত মানসিক অবশেষে রোগে থাকেন মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার মানে মা হতে পারবেন না বা ডিম্বাশয়ের তেমন নয়,

মাসিক বন্ধ হয়ে গেলে করণীয় কি :

অনিয়মিত মাসিক বা পিরিয়ড হওয়ার ফলে মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ পিরিয়ড নিয়মিত হয়ে গেলে মাসিক বন্ধ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা কম পূর্বে নিয়মিত হলেও হঠাৎ যাদের মাসিক বন্ধ হয়ে যায় তাদের ডাক্তার পরামর্শ গ্রহণ করা অনেক বেশি জরুরী. পিরিয়ড জন্য তিনটি জিনিস জরুরি দরকারি তা হল ডিম্বাণাসু জলবায়ু বা পিটুইটারিতে কোন প্রকার সমস্যা তৈরি না হওয়া,
এসব ক্ষেত্রে সমস্যা হলে কারো নির্ণয় করে সঠিকভাবে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে বা চিকিৎসা না নিলে আপনার অনেক বড় সমস্যা দেখা দিতে পারে কারণ নিয়মিত মাসিক না হলে সম্ভবত অবিবাহিত মেয়েদের সমস্যা দেখা দিতে পারে পুনরায় মাসিকের প্রক্রিয়াটি শুরু হয়ে যাবে আপনার যদি এই সকল কারণ ব্যতীত মাসিক বন্ধ হয়ে যায় ও অনিয়মিত মাসিক হয়ে থাকে তাহলে আপনারা পুনরায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন এবং এর সম্পর্কে নিচে ব্যাখ্যা দেওয়া হল

পর্যাপ্ত পরিমাণে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া:

অতিরিক্ত পুষ্টির অভাবে অনেক সময় পিরিয়ড হতে বিলম্ব হয়. পুষ্টি জড়িত সমস্যার জন্য অনেক সময় অনিয়মিত মাসিক হয়ে থাকে শরীরের অতিরিক্ত চর্বি ও সমস্যার কারণ পরিমাণ মতো সবকিছু খাওয়ার চেষ্টা করা করতে হবে তাহলে এই ধরনের সমস্যা দেখা দেয় আপনাকে নিয়মিত পুষ্টিকর জাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হবে,

পর্যাপ্ত পানি পান করা:

আমরা জানি যে পানির অপর নাম জীবন তাই আমাদের প্রতিনিয়ত গড়ে পাঁচ থেকে আট লিটার পানি পান করতে হয় তাই আমাদের দিনে পাঁচ থেকে আট লিটার পানি পান করা অতি জরুরী পানি শূন্যতা দেখা দিলে ডিমানাসুর তার স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা হ্রাস পায় যার ফলে এই মাসের পিরিয়ড হলেও পরের মাসে বিলম্ব হয় অনেক সময় স্বাভাবিকভাবে কয়েক মাস ধরেও এই পর্যায়ে কর্ম চলতে পারে তাই প্রতি দিন পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করতে হবে,

প্রোটিন জাতীয় খাবার:

মাছ ডিম সবুজ শাকসবজি ইত্যাদি দেহের সুস্বাস্থ্য বয়ে আনে শারীরিক দুর্বলতা ও অসুস্থতা অনিমিত পিরিয়ড জন্য দায়ী সৈনিক সুস্বাস্থ্যতা নির্ণয় হয় এমন সকল খাবার প্রতিদিন খেতে হবে এবং এবং আমাদের শরীরের দুর্বলতা কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের ভিটামিনযুক্ত খাবার খেতে হবে কারণ শরীরে ভিটামিন এর অভাব থাকলে এই সমস্যাগুলো দেখা দেয় তাই ভিটামিন এ সংযুক্ত খাবার গ্রহণ করতে হবে,
মহিলাদের মাসিক হওয়ার কারণ:
অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ সম্পর্কে জানা অন্তত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ে মানুষের জানে যে মাসিক বা পিরিয়ড মেয়েদের জন্য কত বেশি গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় প্রাপ্তবয়স্ক একজন মেয়ে যদি অনিয়মিত পিরিয়ড হয় তাহলে এর ফলে পড়তে হতে পারে নানা সমস্যার সম্মুখীন এবং তাতে করে তার মাতৃত্ব ঘ থেকেও বঞ্চিত হতে পারে কারণ অনিয়মিত মাসিকের ফলে ডিম্বাণাসু তৈরি হতে অনেক সমস্যা সম্মুখীন হয়,

মাতৃত্ব ধারণের জন্য পিরিয়ড সঠিক সময়ে হওয়ার অনেক বেশি জরুরী. অনিয়মিত পিরিয়ড বা মাসিক এর কারণে ডিম্বাণাসুর ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বিশেষ করে অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেত্রে হঠাৎ পিরিয়ড বন্ধ নিয়মিত না হওয়া ইত্যাদি সমস্যাগুলো দেখা যায় অবিবাহিত অবস্থায় মেয়েদের যদি মাসিক বন্ধ হয়ে যায় সে ক্ষেত্রে করনীয় কি মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার প্রায় সকলের অতিরিক্ত মানসিক চিন্তা হয়ে তারপরে,

একটি অবিবাহিত মেয়ের যদি অনিয়মিত পিরিয়ড বা মাসিক বন্ধ হয়ে যায় তার ফলে আপনি যদি ভাবে থাকেন যে মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার মানেই মা হতে পারবেন না বা ডিমানো সুর কোন রোগ বাসা বাঁধছে তেমন নয় অনেক সময় অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেতের নানা কারণে মাসিক বন্ধ হয়ে থাকে অনিয়মিত পিরিয়ড এর লক্ষণ দেখা দিলে সরাসরি ডাক্তারের সাথে পরামর্শ কর এবং চিকিৎসা গ্রহণ করুন আপনার স্বাভাবিক প্রক্রিয়া তৈরি করা যায়,

অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ:

আপনারা হয়তোবা অনেকেই জানেন আবার অনেকেই জানেন না যে সাধারণত 14 থেকে 46 বছর পর্যন্ত মেয়েদের ডিম্বাশয় কার্যক্ষমতা চালিয়ে যেতে পারে. এই সময় পর্যন্ত একটি মেয়ের চাইলে মা হতে পারে বা মা হওয়ার আশা পূরণ করতে পারে. এ সময় কাল এর মধ্যে প্রতি মাসে মেয়েদের ডিম্বাণাসু তৈরি হতে থাকে. সেটা যদি শুক্রাণুর সংস্পর্শে না আসে ততক্ষণ সেটা রক্ত প্রসাবের মাধ্যমে বেরিয়ে যায় সেটা সাধারণত ভাবে আমরা মাসিক বা প্রাইড বলে থাকি,

বেশ কিছু কারণ অনিয়মিত মাসিকের কারণ হতে পারে যা মাধ্যমে টেস্ট অনিয়মিত স্বাস্থ্যর অবস্থা বা আরো অনেক কিছু অনিয়মিত মাসিকের কিছু সাধারন কারণ নিম্ন

মাসিক চাপ: একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে যে দীর্ঘ সময়ে জন্য উচ্চ স্তরের উদ্যোগে অনিয়মিত মাসিকের দিকে পরিচালিত করতে পারে
হরমোনের ভারসাম্যহীনতা: ইনট্রোজেন এবং প্রজেস্টরণ জলবায়ু অন্তহরণের গঠনিক নিয়ন্ত্রণ করে সুতরাং যদি আপনার শরীরের হরমোনের ভার সময় হীনতা থাকে তবে এর ফলেও অনিয়মিত মাসিক হতে পারে বা অপুষ্টির কারণে আপনার হরমোন জড়িত সমস্যা দেখা দেয় এবং তার জন্য আপনার অনিমত মাসিকের সৃষ্টি হতে পারে,
জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি: জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি খাওয়া বা বন্ধ করলে অনিয়মিত মাসিক হতে পারে কখনো যদি লক্ষ্য করেন যে হঠাৎ করে পিরিয়ড বন্ধ হয়ে গেছে তার মানে ডিম্বাণাসু তৈরিতে ব্যাঘাত ঘটায়,

যদি কখনো অবিবাহিত মেয়েদের হঠাৎ করে যদি পিরিয়ড বন্ধ হয়ে গেছে তার মানে ডিমানের সু তৈরি করতে ব্যাঘাত ঘটায় সাধারণভাবে যদি ডিমান্ডের সাথে কোন মারাত্মক সমস্যা সৃষ্টি না হয় সে ক্ষেত্রে মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার কিছু কারণ রয়েছে যেমন অতিরিক্ত নেশাদ্রব্য পান করা নেশাদ্রব্য ডিম্বানু তৈরিতে ব্যাঘাত ঘটায় ফলে অনিয়মিত লক্ষ্য করা যায়,

প্রোটিন জাতীয় খাবার:

অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেত্রে তারা সচরাচর তাদের খাদ্যদ্রব্য তালিকার মধ্যে তেমন নজর দেয় না এবং এর থেকে তাদের অনেক প্রকারের রোগ জীবাণু হয়ে থাকে, সাধারণত অবিবাহিত মেয়েরা খাবারের প্রতি অনেক অনিহা থাকে এটা প্রত্যেকের মেয়েদেরই ক্ষেত্রে খাবারের অনিয়ম. কিন্তু অনিয়মিত মাসিকের ফলে অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেত্রে অনেক বড় একটি সমস্যা কারণ অনিয়মিত মাসিকের ফলে তারা মাতৃত্ব থেকে বঞ্চিত হতে পারে,
তাই অবশ্যই যুক্ত খাবার খেতে হবে একটি অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেত্রে অনেক প্রচুর পরিমাণে প্রোটিনের পরিমাণ দরকার তাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় প্রতিদিনের মতো ডিম ইত্যাদি সুস্বাস্থ্য তার জন্য প্রতিনিয়ত গ্রহণ করতে হবে. এসব না খেলে শারীরিক দুর্বলতা বয়ানে তাই আমাদের সুস্বাস্থ্য থাকতে হলে অবশ্যই পুরোটিন জাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হবে, তাই শতকরা ও আমিষের প্রতিনিয়ত খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে,

নিয়মিত ঘুম:

অনিয়মিত ঘুমের ফলে আমাদের দেহে সাধারণত রোগ বাসা বেঁধে থাকে. কারণ অনিয়মিত ঘুমের কারণে আমরা অনেক প্রকার রোগে ভুগে থাকি সুস্বাস্থ্য জন্য আমাদের প্রতিনিয়ত আমাদের ঘুমটাকে ঠিক রাখতে হবে যেমন অনিদ্রার কারণে শরীরে নানা ধরনের রোগ তৈরি হয়ে হয়, এবং অনিয়মিত ঘুমের ফলে অতিরিক্ত মানসিক চাপ পড়ে তার থেকে আমাদের শরীরের ডিম্বাশু সঠিকভাবে কার্যকর করতে পারে না,

অতিরিক্ত অনিদ্রা কারণে আমাদের শরীরে প্রতিনিয়ত রোগ বাসা বাঁধে এবং এর থেকে মারাত্মক ধরনের বা মরণব্যাধি তৈরি হয় ফলে আমাদের শরীরে অতিরিক্ত রক্তচাপ প্রবাহিত হয় বা একজন অবিবাহিত মেয়ে অনিয়মিত নিদ্রার ফলে তার ডিম্বাণাসু তৈরি করতে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে এবং সে মা থেকে বঞ্চিত হতে পারে তাই সুস্বাস্থ্যর জন্য আমাদের প্রতিনিয়ত কম করে হলেও আট ঘন্টা ঘুমাতে হবে তাহলে আমরা সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে পারব,

মাসিক হওয়ার ট্যাবলেট এর নাম :

আসলে মাসিক হওয়া বা না হওয়া এটা প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া একজন মেয়ের মাসিক কখন হবে বা কখন হবে না এটা টোটালি বিএসএস করে তার মানসিক চাপের উপর বা তার সুস্বাস্থ্য তার উপরে এটাতে মানুষের কোন হাত নেই, অনেকেই মাসিক হলে ওষুধ সেবন করেন আসলে এটি কতটা সঠিক সেটা সবাই জানে না মাসিক হলে ওষুধ ঘটানো যায় না, কিন্তু মাসিক হওয়ার জন্য বাজারে মাসিকের অনেক ধরনের ওষুধ পাওয়া যায়,

কিন্তু তবে যদি একেবারে কোন উপায় না পেয়ে থাকেন. তাহলে আপনি মাসিক হওয়ার ওষুধ সেবন করতে পারেন, কিন্তু তাতে কতটা ফলকৃত হবেন সেটা সঠিক ধারণা নেই মাসিক নিয়মিত হওয়ার জন্য বিভিন্ন কোম্পানির ওষুধ রয়েছে 5 জি এম এল মাসিক নিয়মিত করার ট্যাবলেট গুলো আমাদের শরীরে ন্যাচারাল এর প্রভাব ফেলে বা আমাদের হরমোনের সমস্যা তৈরি করে. কিন্তু এই ওষুধগুলো সেবনের ফলে যাদের অনিয়মিত মাসিক আছে এর থেকে তারা মুক্তি পেয়ে থাকে,

মাসিক হওয়ার ওষুধের নাম:

1.Ethinor

2.Menoral

3.Normens

4.Feminor

5.Norestin

যাদের অনিয়মিত মাসিক হয়ে থাকে তারা এই ওষুধগুলো সেবন করতে পারেন আসলে ওষুধগুলো কতটি কার্যকর সেটা এখনো ধারণা করা যায় না কারণ মাসিক হওয়া বা না হয় এটা টোটালি প্রাকৃতিক উপাদান,

অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ ও শেষ কথা:

অবিবাহিত মেয়েদের মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ ও সমূহ সম্পর্কে আমরা উপরে আলোচনা করেছি অনিয়মিত মাসিক বা প্রেমিক ড একটা মেয়ের ক্ষেত্রে অনেকটা ক্ষতিকর বা অনেকটা বেশি ঝুঁকিপূর্ণ মাসিক বা প্রবেশ সঠিকভাবে হওয়ার অনেক বেশি জরুরী মাসি বন্ধ হয়ে যাওয়ার গর্ভধারণের ক্ষেত্রে অনেক বেশি ঝুঁকিপূর্ণ কারণ অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেত্রে যদি অনিয়মিত মাসিক বা মাসিক বন্ধ হয়ে যায় তাহলে তারা মাতৃত্ব থেকে বঞ্চিত হতে পারে,

অবিবাহিত মেয়েদের ক্ষেত্রে মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ লেখা সম্পর্কে আপনারা অনেক কিছু জেনেছেন বা কারো মতামত থাকলে আমাদের ওয়েবসাইটে কমেন্ট করে জানাতে পারেন এবং আমাদের ওয়েবসাইটের পোস্ট পড়ে যদি আপনি উপকৃত হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আমাদের পোস্টটি অন্যদের মাঝে শেয়ার করবেন. আর আমাদের ওয়েবসাইটটি প্রতিনিয়ত ভিজিট করবেন,

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া